ক্যারিয়ার গাইডলাইন

ব্যাংকে চাকরি পাওয়ার ৫টি সহজ ও অবিশ্বাস্য উপায়


বর্তমান বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একটা চাকরি পাওয়া মানে সোনার হরিণ হাতের মুঠোই পাওয়া একই কথা। ব্যাংকের চাকরি হোক বা অন্য যে কোন চাকরি হোক ব্যক্তিজীবনে একটা চাকরি পেলেই সংসার জীবন কেটে যাবে বলে আমরা সকলেই মনে করি। তবে এখানে কেউ কেউ ব্যতিক্রম হতে পারে যে ভাল কোন চাকরি না পাওয়া পর্যন্ত থেমে থাকেনা। তবে একটা বিষয় লক্ষণীয় যে এ সমাজে কয়জন আছে বেকারত্বের বোঝা মাথায় নিয়ে সমাজে ভালভাবে বেঁচে থাকতে। বাংলাদেশে অন্যান্য সরকারি চাকরির মত ব্যাংকের চাকরিও অনেক সম্মানের পেশা হিসেবে বিবেচিত। এই কারণে বাংলাদেশের চাকরি প্রার্থীরা অনার্স মাস্টার্স পাশ করার পরেই ব্যাংকের চাকরি পয়াওয়ার জন্য হন্য হয়ে থাকে। সুপ্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ, আজ আপনাদের জন্য ব্যাংকে চাকরি পাওয়ার ৫টি সহজ ও অবিশ্বাস্য উপায় সম্পর্কে আলোচনা করব। 

মূলভিত্তি গড়ে তুলুনঃ

ব্যাংক সহ অন্যান্য সরকারি চাকরি পেতে সবচেয়ে সহায়ক ভূমিকা পালন করে গণিত, বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ জ্ঞান, বিজ্ঞান এনং সাধারণ জ্ঞান সম্পর্কে যাবতীয় জ্ঞান রাখা অর্থাৎ এ সব বিষয়ের উপর মূলভিত্তি গড়ে তোলা। আমরা সকলেই জানি যে, প্রতিটি চাকরি পরীক্ষায় উপরল্লিখিত বিষয়ের উপর অনেক প্রশ্ন আসে। যদি আমরা বাংলা বিষয়টি লক্ষ্য করি যে, এখান থেকে যত সাহিত্যিক আছে সেগুলো থেকেই বারবার পরীক্ষায় আসে। গণিতের ব্যাপারে একটা অংক দেখবেন যে বারবার ঐ একটাই অংক পরীক্ষায় আসছে। আবার অন্যদিকে ইংরেজির গ্রামারের বেলায় নিজের ভিত্তি গরে না তুলতে পারলে গ্রামারের কোন কিছুই সমাধান করতে পারবেন না। সাধারণ জ্ঞানের বেলায় ঐ একই সূত্র পরস্পরের সাথে গাঁথা। মূল কথা হলো প্রতিটি বিষয়ের উপর ভাল দক্ষতা না থাকলে এই প্রতিযোগিতার বিশ্বের চাকরির বাজারে টিকে থাকা অনেক কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। আপনার যদি মূলভিত্তি শক্ত হয় তাহলে কোন চাকরির পরীক্ষায় কেউ ঠেকাতে পারবে না। আপনি সব পরীক্ষায় টিকে যাবেন।

বিসিএসের বাংলা সমাধানঃ ১০ম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার বাংলা অংশের ব্যাখ্যাসহ প্রশ্ন সমাধান

কৌশলী হোনঃ

বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া সকল শিক্ষার্থী একটা সরকারি বা বেসরকারি চাকরি পেতে রাত দিন পড়াশুনা করে। ব্যাংকে চাকরি পেতে তারা দিনকে রাত আর রাত কে দিন বানিয়ে ফেলে। রাত দিন পড়াশুনা করে দেখা গেল আপনি পরীক্ষায় যোগদান করে ঠিকমত সময়ের অভাবে ১০০% উত্তর করতে পারলেন না। আপনি যথেষ্ট কৌশলী না হয়ে সঠিকভাবে সব উত্তর না করে পরীক্ষায় টিকলেন না। তাহলে বিষয়টা কি দাঁড়াল? চাকরির পরীক্ষায় টিকতে হলে আপনাকে কৌশলী না হলে জব টা হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে। পরীক্ষায় হলে দেখবেন কেউ কেউ এক ঘন্টার পরীক্ষায় কয়েক মিনিটের মধ্যেই পরীক্ষা সম্পন্ন করে ফেলে। এতে কেউ কেউ হিংসা করে তাঁর সফলতা দেখে। এখানে কৌশলী হবার ভূমিকা অনেক সাহায্য করে। আপনি যদি কৌশলী হোন তাহলে পরীক্ষার হলে সময়ের আগেই পরীক্ষা শেষ করতে পারবেন। এতে যেকোন ধরণের চাকরি পাওয়া সহজ হয়ে যাবে। পড়াশুনা সকলেই করে কিন্তু কৌশলী না হবার কারণে অনেকেই প্রতিযোগিতার যুগে পিছিয়ে পড়ে। তাই নিজেকে প্রথম থেকেই কৌশলী হয়ে গড়ে তুললে আপনি এক ধাপ এগিয়ে যাবেন। 

ইংরেজী অংশের সমাধানঃ অভিনব কৌশলে ১০ম বিসিএস পরীক্ষার ইংরেজির প্রশ্ন সমাধান (ব্যাখ্যাসহ)

সময় সম্পর্কে সচেতন হোনঃ 

আপনি যতই কৌশলী হোন না কেন সময় সম্পর্কে সচেতন না হলে চাকরি পরীক্ষায় টিকতে পারবেন না।আমরা স্কুল জীবন থেকে অনেক দেখেছি যে, অনেকের লেখা খুবই ভাল কিন্তু সে সময়ের জ্ঞান না থাকার কারণে সময়ের আগে নিজের পরীক্ষা শেষ করতে পারেন না। সে যদি সময় শেষ হওয়ার সাথে সাথে পরীক্ষা শেষ করতে পারত তাহলে তাঁর মত নাম্বার কেউ পেত না। এর বাস্তব চিত্র দেখতে পাই যখন আমরা পরীক্ষার হলে পরীক্ষা দিতে বসি। আমরা সকলেই জানি যে, সময়ের মাত্র একটা ফোঁড়, আর অসময়ের বেশ কয়েকটা ফোঁড় মানে দশফোঁড় হয়ে যেতে পারে। তাই সময়ের কাজ সময়ে না করলে সেটা প্রয়োজনের সময় বিষফোঁড়া হয়ে গায়ে ফুটবে। বাংলাদেশের চাকরির বাজার দেখলে আমরা পর্যবেক্ষণ করি যে, যেখানে মাত্র দশজন ফাঁকা পদ রয়েছে সেখানে আবেদন পড়ে এর এক হাজার গুণ। এই চিত্র দেখে আমরা হতাশ হয়ে যেতে পারি। তাই একটু কৌশলের সাথে সময় সম্পর্কে সচেতন হয়ে পরীক্ষার হলে সময়মত পরীক্ষা শেষ করতে পারলে পেয়ে যেতে পারেন ভাল মানের একটা চাকরি।

চাকরি খুঁজছেন তাহলে এই পোস্ট আপনার জন্য যেকোন চাকরি পেতে দরকারি ৫টি পরামর্শ

গণিতের প্রতি আগ্রহ বাড়ানঃ

যে কোন চাকরি পেতে চাকুরি প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রতিযোগিতা হয় গণিতে নাম্বার কম বেশি পাওয়া নিয়ে। আপনি যদি এক নাম্বার কারো থেকে কম পান তাহলে বিসিএস বা ব্যাংকে আপনি বিশ হাজার জনের নিচে চলে যাবেন। গণিতের প্রতি আগ্রহ না থাকার কারণে আপনি আমি চাকুরি পেতে অনেক দেরি করে ফেলি। ছোটবেলা থেকেই অনেকের গণিতের প্রতি তেমন একটা ভীতি কাজ করে। পরীক্ষার হলে পর্যাপ্ত কৌশলী এবং গণিতের শর্ট টেকনিকে গণিত সমাধান চেষ্টা না জানার কারণে সময়ের মধ্যে পরীক্ষা শেষ করতে না পারার কারণে চাকরি হয়না। মনে রাখবেন, গণিত এমন একটা মজার বিষয়। একবার গণিতের মজা যদি আপনার মাথায় ঢুকে যায় তাহলে অন্য বিষয়ের থেকে গণিতকে সবার আগে প্রাধাণ্য দিবেন এবং অন্য বিষয়গুলোকে তোয়াক্কাই করবেন না। প্রথমত গণিতকে মজা ভেবে গণিতের সমাধান করতে শিখুন। গণিত একটা বুদ্ধির খেলার মত। তাই এ খেলায় ছোটবেলা থেকেই আগ্রহ না বাড়িয়ে তুললে চাকরির পরীক্ষায় পেরে উঠবেন না। তদুপরি, গণিতের প্রতি যথেষ্ট আগ্রহ না বাড়ালে শুধু ব্যাংকের চাকরি কেন, কোন সরকারি বা বেসরকারি চাকরি পাবেন না।

বাংলাদেশ বিষয়ের সমাধানঃ সেরা টেকনিকে ১০ম বিসিএস পরীক্ষার বাংলাদেশ বিষয়াবলী ব্যাখ্যাসহ সমাধান

সৃষ্টিকর্তার উপর ভরসা রাখুনঃ

আপনি মূলভিত্তি গড়ে তুললেন, সময়ের প্রতি সচেতন হলেন, গণিতের প্রতি আগ্রহ বাড়ালেন, কৌশলী হলেন কিন্তু আপনার সৃষ্টিকর্তার উপর ভরসা করলেন না। তাহলে আপনি চাকরি পাওয়া থেকে বঞ্চিত হতে পারেন। সর্বোপরি মহান সৃষ্টিকর্তার উপর একমাত্র ভরসাই আপনাকে সোনার হরিণ পেতে সাহায্য করবে।  

আরো দেখুন বিসিএস ও অন্যান্য পরীক্ষার প্রস্তুতিতে নোটখাতা বা হ্যান্ডনোটের প্রয়োজনীয়তা

সুপ্রিয় শিক্ষার্থী, ব্যাংকে চাকরি পাওয়ার ৫টি সহজ ও অবিশ্বাস্য উপায় শুধুমাত্র এই পাঁচটির উপর ভরসা করলেই চলবেনা। এর পাশাপাশি আপনাকে পরিশ্রমী আর পড়াশুনার মাধ্যমে ব্যাংকের চাকরি পাবার চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। ধন্যবাদ।  

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button