৪১ তম বিসিএসের বাংলাদেশ বিষয়াবলীর পূর্ণ সমাধান

বাংলাদেশ বিষয়াবলী এর পরিপূর্ণ সমাধান 

প্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ, আপনাদের অনুরোধে এখানে ৪১ তম বিসিএসের বাংলাদেশ বিষয়াবলী পূর্ণ সমাধান দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ বিষয়াবলী ৩০ টি প্রশ্নের পরিপূর্ণ সমাধান আছে। ইতিমধ্যে ১০ম প্রিলিমিনারি বিসিএস পরীক্ষার বাংলা অংশের প্রশ্ন সমাধান এবং অভিনব কৌশলে ১০ম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ইংরেজির প্রশ্ন সমাধান (ব্যাখ্যাসহ)সেরা টেকনিকে ১০ম বিসিএস পরীক্ষার বাংলাদেশ বিষয়াবলীর ব্যাখ্যাসহ সমাধান বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। বিসিএস প্রশ্ন, চাকরির প্রশ্ন ও উত্তর পেতে বাংলাদেশ বিষয়াবলী সমাধান পেতে পোস্টটি ভালভাবে পড়ুন।

৪১ তম বিসিএসের বাংলাদেশ বিষয়াবলীর পূর্ণ সমাধান
৪১ তম বিসিএসের বাংলাদেশ বিষয়াবলীর পূর্ণ সমাধান

 

বাংলাদেশ বিষয়াবলী এর সম্পূর্ণ সমাধান

এখানে ৪১ তম বিসিএসের বাংলাদেশ বিষয়াবলী পূর্ণ সমাধান দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ বিষয়াবলীর ৩০ টি প্রশ্নের পরিপূর্ণ সমাধান আছে।

বাংলাদেশ বিষয়াবলী এর সমাধানঃ

০১। বাংলার ইতিহাসে মধ্যযুগে প্রথম বাঙালিদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত গৌড় রাজ্য। গৌড় রাজ্যের রাজধানী ছিল কর্ণসুবর্ণ বা কানসোনা গৌড় রাজ্য রাজা শশাঙ্ক (আনুমানিক ৫৯–৬২৫) এবং ৬২৫–৬২৬ রাজা মানব শাসন করেন। আবার গৌড় রাজ্যের ঐতিহাসিক যুগ প্রতিষ্ঠা লাভ করে ৫৯০ খ্রিস্টাব্দে এবং বিলুপ্ত হয় ৬২৬ খ্রিস্টাব্দে। রাজা শশাঙ্ক আনুমানিক ৫৯৯–৬২৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত শাসন করেন। রাজা শশাঙ্ক ৬৩৭ সালে মৃত্যুবরণের মাধ্যমে গৌড় রাজ্যের অবসান ঘটে। তাহলে এখান থেকে বুঝা যায় যে, রাজা শশাঙ্কই ছিলেন অবিভক্ত বাংলার সর্বপ্রথম রাজা।  

আমরা এখানে যেকোন সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসার মত বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন পাচ্ছি, যেমনঃ

ক) বাংলার ইতিহাসে মধ্যযুগে প্রথম বাঙালিদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত রাজ্য কোনটি।

খ) গৌড় রাজ্যের রাজধানীর নাম কি?

গ) রাজধানী কর্ণসুবর্ণ এর অপর নাম কি?

ঘ) গৌড় রাজ্যের অপর রাজার নাম কি?

ঙ) গৌড় রাজ্যের অবসান ঘটে কখন? ৬৩৭ সালে

চ) রাজা শশাঙ্ক কে ছিলেন?

Read More :   জ্যামিতি সংক্রান্ত সাধারণ জ্ঞান | চাকরির পরীক্ষায় আসা জ্যামিতি

ছ) অবিভক্ত বাংলার সর্বপ্রথম রাজা কে ছিলেন।

প্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ এখানে ক)-ছ) পর্যন্ত প্রশ্নের উত্তর ০১ নং এ বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। বিস্তারিত আলোচনা ভালভাবে পড়ার পর প্রশ্নগুলির উত্তর অনায়াসেই পাবেন।   

০২। সম্পর্কে জানতে হলে আগে ০১ নং এ বর্ণিত রাজা শশাঙ্ককে আগে জানতে হবে। তাই এই কলাম বিস্তারিত জেনে নিন। বাংলার ইতিহাসে মধ্যযুগে প্রথম বাঙালিদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত গৌড় রাজ্য। গৌড় রাজ্যের রাজধানী ছিল কর্ণসুবর্ণ বা কানসোনা গৌড় রাজ্য রাজা শশাঙ্ক (আনুমানিক ৫৯–৬২৫) এবং ৬২৫–৬২৬ রাজা মানব শাসন করেন। আবার গৌড় রাজ্যের ঐতিহাসিক যুগ প্রতিষ্ঠা লাভ করে ৫৯০ খ্রিস্টাব্দে এবং বিলুপ্ত হয় ৬২৬ খ্রিস্টাব্দে। রাজা শশাঙ্ক আনুমানিক ৫৯৯–৬২৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত শাসন করেন। রাজা শশাঙ্ক ৬৩৭ সালে মৃত্যুবরণের মাধ্যমে গৌড় রাজ্যের অবসান ঘটে। গৌড় রাজ্যের অবসানের পর বাংলার ইতিহাসে এক বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি বিরাজ করে যেখানে হত্যা, কলহ, মারামারি, হানাহানি, বিবাদ, গৃহযুদ্ধ ইত্যাদির পরিমাণ চরম শিখরে উঠে। এসব হানাহানির পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় সাধারণ মানুষের দুঃখের সীমা ছিল না। মূলত ৭ম-৮ম শতকে শুরু হওয়া মাৎসান্যায় আমলে কোন শাসক না থাকায় এ পরিস্থিতির শিকার হোন সাধারণ জনগণ। এ প্রেক্ষিতে অভিজাততন্ত্রের প্রতিষ্ঠা লাভ করে সে যুগে। সাধারণ লোকদের ডাকা একটি সাধারণ সভায় “গোপাল”কে রাজা হিসেবে মনোনিত করেন যিনি “মাৎসান্যায়” আমলের অবসান ঘটান। তাই মাৎসান্যায় বাংলার ৭ম-৮ম সময়কালকে নির্দেশ করে।

আমরা এখানে যেকোন সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসার মত বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন পাচ্ছি, যেমনঃ

ক) “মাৎসান্যায়” বাংলার কোন সময়কালকে নির্দেশ করে?

খ) “মাৎসান্যায়” শব্দের অর্থ কি?

গ) কে “মাৎসান্যায়” আমলের অবসান ঘটান?

প্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ এখানে ক)-গ) পর্যন্ত প্রশ্নের উত্তর ০২ নং এ বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। বিস্তারিত আলোচনা ভালভাবে পড়ার পর প্রশ্নগুলির উত্তর অনায়াসেই পাবেন।  

০৩। বাংলার স্বাধীন সুলতান ছিলেন আলাউদ্দিন হোসেন শাহ যিনি ১৪৯৪-১৫১৯ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বাংলা শাসন করেন। তিনি রাজ্যে শান্তি বজায় রাখার জন্য হিন্দু প্রজাদের প্রতি উদার দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ করেন। তাঁর শাসনামলে বাংলা সাহিত্য বেশ সমৃদ্ধি লাভ এবং বিজয় গুপ্ত মনসামঙ্গল” কাব্য রচনা করেন। ওয়ালি মুহাম্মদ আলাউদ্দিন হোসেন শাহের শাসনামলে ছোট সোনা মসজিদ নির্মান করেন। মূলত এসব কারণেই সুলতান আলাউদ্দিন হোসেন শাহ এর শাসনামলকে স্বর্ণযুগ বলা হয়।

Read More :   বিসিএস আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী প্রশ্ন (আপডেট)

আমরা এখানে যেকোন সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসার মত বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন পাচ্ছি, যেমনঃ

ক) আলাউদ্দিন হোসেন শাহ কে ছিলেন?

খ) আলাউদ্দিন হোসেন শাহ এর শাসনামল কত ছিল?

গ) “মনসামঙ্গল” কাব্যের রচয়িতা কে?

ঘ) বিজয় গুপ্ত মনসামঙ্গল” কাব্য কোন সুলতানের শাসনামলে রচনা করেন?

ঙ) কোন শতকে বিজয় গুপ্ত মনসামঙ্গল” কাব্য রচনা করেন?

চ) সুলতান আলাউদ্দিন হোসেন শাহ এর শাসনামলকে স্বর্ণযুগ বলার কারণ কি?

প্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ এখানে ক)-চ) পর্যন্ত প্রশ্নের উত্তর ০৩ নং এ বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। বিস্তারিত আলোচনা ভালভাবে পড়ার পর প্রশ্নগুলির উত্তর অনায়াসেই পাবেন।  

বাংলাদেশ বিষয়াবলী এর সম্পূর্ণ সমাধান

এখানে ৪১ তম বিসিএসের বাংলাদেশ বিষয়াবলী পূর্ণ সমাধান দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ বিষয়াবলীর ৩০ টি প্রশ্নের পরিপূর্ণ সমাধান আছে।

০৪। বিজয় সেন আনুমানিক ৯০০ খ্রিস্টাব্দে বা এর কিছু পূর্বে বাংলায় সেন বংশের প্রতিষ্ঠা করেন। সেন রাজাদের মধ্যে বীর সেন, সামন্ত সেন, হেমন্ত সেন, বিজয় সেন, সুখ সেন, বল্লাল সেন, ও লক্ষ্মণ সেন অন্যতম। এ বিসিএস পরীক্ষায় এ সম্পর্কিত জটিল একটা প্রশ্ন এসেছে। ব্যাখ্যাসহ দেখুনঃ লক্ষ্মণ সেনের (স্ত্রীর নাম- তাড়াদেবী) দুই পুত্রের নাম হলো বিশ্বরূপ সেন ও কেশব সেন বিশ্বরূপ সেন হলেন বঙ্গের সেন বংশীয় নরপতি বল্লাল সেনের পৌত্র । লক্ষ্মণ সেনের(সেন রাজবংশের ৪র্থ রাজা) মৃত্যুর পর কেশব সেন ও বিশ্বরূপ সেন পর পর বাঙ্গালার রাজা হয়েছিলেন। তাহলে এ থেকে আমরা প্রশ্নে উল্লেখিত কেশব সেন এর নামানুসারে বাংলার সেন বংশের শেষ শাসনকর্তা হিসেবে উল্লেখ করা যাচ্ছে। ৪১ তম বিসিএসে প্রশ্নের অপশনে নাম উল্লেখ ছিল হেমন্ত সেন, বল্লাল সেন, লক্ষণ সেন এবং কেশব সেন এর নাম। যেহেতু লক্ষণ সেন এর মৃত্যুর পর তাঁর পুত্র কেশব সেন এবং বিশ্বরূপ সেন এর উপর দায়িত্বভার অর্পন করেন তাই প্রশ্নের অপশন অনুযায়ী কেশব সেন সঠিক উত্তর।  

Read More :   সিনিয়র অফিসার প্রশ্ন সমাধান | Bank job question solution of senior officer

০৫। বাংলার সর্বপ্রাচীন জনপদের নাম হলো পুণ্ড্র আর প্রাচীন যুগে বৃহত্তর বগুড়া, রাজশাহী, রংপুর ও দিনাজপুর জেলার অংশ বিশেষ নিয়ে পুণ্ড্র জনপদ গঠিত হয়েছে। এ রাজ্যের রাজধানী ছিল পুণ্ড্রবর্ধন বা পুণ্ড্রনগর যা বগুড়া জেলার মহাস্থানগড়ে (এখানে শাহ সুলতান বলখির মাজার, বেহুলা লখিন্দরের বাসর ঘর এবং করতোয়া নদী আছে) অবস্থিত ছিল। এ অঞ্চল বরেন্দ্রভূমি নামে পরিচিত।

আমরা এখানে যেকোন সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসার মত বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন পাচ্ছি, যেমনঃ

ক) বাংলার সর্বপ্রাচীন জনপদের নাম কি?

খ) পুণ্ড্র কী?

গ) পুণ্ড্রনগর কতটি অঞ্চল নিয়ে গঠিত ছিল?

ঘ) পুণ্ড্রনগর কোন কোন অঞ্চল নিয়ে গঠিত ছিল?

ঙ) পুণ্ড্রবর্ধন বা পুণ্ড্রনগরের রাজধানীর নাম কি?

চ) পুণ্ড্রবর্ধন বা পুণ্ড্রনগর কোন বাংলাদেশের কোন জেলায় অবস্থিত?

ছ) পুণ্ড্রবর্ধন বা পুণ্ড্রনগর কোথায় অবস্থিত?

জ) শাহ সুলতান বলখির মাজার কোথায় অবস্থিত?

ঝ) বেহুলা লখিন্দরের বাসর ঘর কোথায় অবস্থিত?

ঞ) করতোয়া নদী কোন জেলায় অবস্থিত?

ট) বগুড়া জেলা কোন নদীর তীরে অবস্থিত?

ঠ) বরেন্দ্রভূমি বলা হয় কোন অঞ্চলকে? (রাজশাহী বিভাগের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলকে)।

প্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ এখানে ক)-ঠ) পর্যন্ত প্রশ্নের উত্তর ০৫ নং এ বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। বিস্তারিত আলোচনা ভালভাবে পড়ার পর প্রশ্নগুলির উত্তর অনায়াসেই পাবেন।  

এখানে ৪১ তম বিসিএসের বাংলাদেশ বিষয়াবলী পূর্ণ সমাধান দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ বিষয়াবলী ৩০ টি প্রশ্নের পরিপূর্ণ সমাধান আছে।

 

বিস্তারিত আসছে……………………………………