আবাসিক হোটেল ভাড়া দেওয়ার/নেওয়ার যাবতীয় নিয়ম নীতিমালা

প্রিয় বন্ধুরা, আজকে আমি আপনার সাথে গুরুত্বপূর্ণ একটি টপিক নিয়ে কথা বলব তা হলো আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম সম্পর্কে। আমাদের বিভিন্ন সময় দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাওয়ার প্রয়োজন হয়। আর যখন আপনি এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাবেন। তখন অবশ্যই আপনাকে আবাসিক হোটেল ভাড়া করে থাকতে হবে। কিন্তু একজন নতুন ব্যক্তির ক্ষেত্রে আবাসিক হোটেল ভাড়া দেওয়ার / নেওয়ার যাবতীয় নীতিমালা গুলো আগে থেকেই জেনে রাখা উচিত। কারণ যদি আপনার আবাসিক হোটেল ভাড়া দেওয়ার/নেওয়ার যাবতীয় নীতিমালা গুলো আগে থেকে জানা থাকে। তাহলে আপনি দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শুরু করে বিদেশ এর বিভিন্ন আবাসিক হোটেল খুব সহজেই ভাড়া করে নিতে পারবেন।

আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

আবাসিক হোটেল ভাড়া দেওয়ার নীতিমালা

আপনি যেহেতু আবাসিক হোটেল ভাড়া দেওয়ার / নেওয়ার যাবতীয় নীতিমালা গুলো জানতে এসেছেন। সেহেতু আমি আজকে আপনাকে এই নীতিমালা গুলো ধাপে ধাপে বলার চেষ্টা করব। তাই সবার আগে আমি আপনাকে জানিয়ে দিবো যে। আবাসিক হোটেল ভাড়া দেওয়ার নীতিমালা গুলো কি কি। অর্থাৎ আপনি একজন ব্যক্তি হয়ে যখন আবাসিক হোটেল ভাড়া দিবেন। তখন আপনাকে যে সকল নীতিমালা গুলো মেনে চলতে হবে। সে গুলো নিচে উল্লেখ করা হলো। আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম।

আবাসিক হোটেল ভাড়া দেয়ার জন্য কি কি প্রয়োজন হয়?

যখন আপনি আপনার নিকটে কিংবা দূরের কোনো শহরে আবাসিক হোটেল দিবেন। তখন আপনার বেশ কিছু বিষয় এর প্রয়োজন হবে। যেমন:

  1. আপনার পাসপোর্ট সাইজের ছবির প্রয়োজন হবে।
  2. জাতীয় পরিচয় পত্র এবং আয়কর সনদ এর প্রয়োজন হবে।
  3. সিভিল সার্জন থেকে অনুমোদিত মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসক কর্তৃক আপনার স্বাস্থ্যের সনদ প্রদান করতে হবে।
  4. আপনার আবাসিক হোটেলের মধ্যে বিদ্যুৎ, গ্যাস, অগ্নি এর ক্ষেত্রে কতটা নিরাপত্তা মূলক ব্যবস্থা রয়েছে। সেই সংক্রান্ত একটি সনদপত্র প্রয়োজন হবে।
  5. আপনার আবাসিক হোটেল যে জমির উপর অবস্থিত। সেই জমির মালিকানা দলিল অথবা ভাড়া নিলে ভাড়ার চুক্তিনামা প্রদান করতে হবে।
  6. আপনার নিজের জেলার প্রশাসক কার্যালয় থেকে একটি নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে হবে।
  7. আপনাকে অবশ্যই ট্রেড লাইসেন্স প্রদান করতে হবে।
  8. যখন আপনি আবাসিক ভবন তৈরি করবেন। তখন অবশ্যই আপনাকে সেই ভবন নির্মাণ করার পূর্বে সরকারের অনুমতি নিতে হবে।
  9. এ গুলোর পাশাপাশি আপনার আরও সংশ্লিষ্ট অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাগজের প্রয়োজন হবে।
Read More :   ডিম আগে না মুরগি আগে ইসলাম কি বলে (ভিডিও সহ)

আর যখন আপনি এই যাবতীয় কাগজ পত্র গুলো সঠিক ভাবে প্রদান করতে পারবেন। তখন আপনি আবাসিক হোটেল তৈরি করতে পারবেন। এবং সেই আবাসিক হোটেল ভাড়া দেয়ার জন্য পরিচালনা করতে পারবেন।

আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম
আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

আবাসিক হোটেল ভাড়া নেওয়ার নীতিমালা

উপরের আলোচনা তে আপনি আবাসিক হোটেল ভাড়া দেওয়ার নীতিমালা গুলো সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। তবে এই বিষয় টি জানার পাশাপাশি যারা সাধারণ মানুষ রয়েছেন। যারা বিভিন্ন সময়ে দূর দূরান্তে যাওয়া আসা করেন। তাদের জন্য বেশ কিছু নিয়ম কানুন জেনে রাখতে হবে। কেননা একজন নতুন মানুষ হিসেবে যখন আপনি আবাসিক হোটেল ভাড়া নেওয়ার নিয়ম কানুন গুলো আগে থেকেই জানবেন। তখন আপনার আর নতুন জায়গা তে গিয়ে আবাসিক হোটেল ভাড়া নেওয়ার সময়। কোন প্রকারের সমস্যা হবে না। যদিও বা এক্ষেত্রে আইনি কোন নীতিমালা নেই। তবে আমার দৃষ্টিকোণ থেকে বেশ কিছু বিষয় আছে। যে গুলো আপনার খেয়াল রাখা উচিত। আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম সম্পর্কে। যেমন:

  1. সর্বপ্রথম আপনি নিরাপত্তা কে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিবেন। যদি ভালো নিরাপত্তা থাকে। তাহলে আপনি সেই আবাসিক হোটেল ভাড়া করবেন।
  2. যখন আপনি কোন আবাসিক হোটেল ভাড়া করবেন। তখন অবশ্যই আশে পাশের মানুষদের কাছ থেকে সেই আবাসিক হোটেল সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিবেন।
  3. একটা কথাও মাথায় রাখবেন, আপনি যখন নতুন কোন আবাসিক হোটেল ভাড়া করবেন। তখন কখনোই প্রথম ফ্লোর কিংবা দ্বিতীয় ফ্লোর ভাড়া নিবেন না।
  4. মনে করুন সেই আবাসিক হোটেলে যদি সন্ত্রাসী হামলা হয় তাহলে সবার আগেই প্রথম এবং দ্বিতীয় ফ্লোরে থাকা ব্যক্তিদের উপর হামলা হবে।
  5. ভুল করে কখনোই কোন আবাসিক হোটেলের অনেক বেশি উপরের তলা ভাড়া নিবেন না।
  6. যদি আপনি অতিরিক্ত নিরাপত্তার কথা ভাবেন। তাহলে অবশ্যই আপনাকে ডাবল বেড এর রুম একাই ভাড়া নিতে হবে।
  7. কারন আপনি যে রুমে থাকবেন। সেই রুমে আর আপনি ছাড়া অন্য কেউ থাকতে পারবে না। যেখানে আপনি অতিরিক্ত নিরাপত্তা পাবেন।
  8. আপনি যে আবাসিক হোটেল ভাড়া করবেন। সেই হোটেল কর্তৃপক্ষ কে আপনার রুম নাম্বার অন্য কাউ কে বলতে নিষেধ করুন।
  9. আপনি কোন হোটেলে উঠেছেন, কোন শহরে আছেন। সেটা ভুলেও সোশ্যাল মিডিয়া গুলো তে শেয়ার করবেন না।
  10. যখন আপনি হোটেলের বাইরে কোথাও যাবেন। তখন ভুল করেও আপনার হোটেলের নাম উচ্চারণ করবেন না।
  11. যদি বাইরে কোন লোক আপনাকে ফলো করে। তাহলে আপনি কখনোই আপনার নিজের হোটেল কক্ষে ঢুকবেন না।
  12. আপনি একটি আবাসিক হোটেলে যে সফল প্রয়োজনীয় কাগজপত্র বা জিনিসপত্র নিয়ে যাবেন। সে গুলো অবশ্যই সাবধানে রাখার চেষ্টা করবেন।
Read More :   সংবিধানের সংশোধনী মনে রাখার কৌশল | ছন্দে ছন্দে সংবিধান pdf সহ

তো একজন সাধারন মানুষ হয়ে যখন আপনি আবাসিক হোটেল ভাড়া নিতে যাবেন। তখন আপনাকে যে সকল বিষয়ের উপর খেয়াল রাখতে হবে। সেই বিষয় গুলো উপরে উল্লেখ করা হয়েছে। এবং যদি আপনি এই বিষয় গুলো কে সঠিক ভাবে অনুসরণ করতে পারেন। তাহলে আমার দীর্ঘ বিশ্বাস যে, নতুন হোটেল ভাড়া নেওয়ার সময় আপনার কোন ধরনের সমস্যা হবে না।

কম টাকায় আবাসিক হোটেল এর তালিকা

উপরের আলোচনা তে আপনি আবাসিক হোটেল ভাড়া দেওয়ার / নেওয়ার যাবতীয় নীতিমালা গুলো সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। তো এবার আমি আপনাকে গোপন একটি তথ্য বলব। আর সেটি হল আমাদের বাংলাদেশে এমন অনেক ধরনের আবাসিক হোটেল আছে। যেখানে আপনি অনেক কম টাকা দিয়ে হোটেল ভাড়া নিতে পারবেন। আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম সম্পর্কে আপনি পড়েছেন।

# নাম্বার:১- হোটেল গিভেন্সি ইন্টারন্যাশনাল

জনপ্রিয় এই আবাসিক হোটেল ঢাকার ফার্মগেট এর মধ্যে অবস্থিত। আর এই আবাসিক হোটেল টি খুব অল্প সময়ের মধ্যে ব্যাপক পরিমাণে জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পেরেছে। যদি আপনি দেশি-বিদেশি পর্যটকদের পছন্দের কোন আবাসিক হোটেলের নাম জানতে চান। তাহলে সবার আগে এই আবাসিক হোটেলের নাম চলে আসবে। উক্ত হোটেলের মধ্যে আপনি বিভিন্ন ক্যাটাগরির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত ১০২ টি পর্যন্ত কক্ষ দেখতে পারবেন। আর আপনি যদি এই হোটেলের রুম ভাড়া নিতে চান। তাহলে আপনার সর্বনিম্ন এক হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১১ হাজার টাকা পর্যন্ত প্রদান করতে হবে।

# নাম্বার:২- হোটেল ৭১

দীর্ঘ ৭১ বছর এর বেশি সময় ধরে আবাসিক হোটেল জগতে বেশ সুনাম অর্জন করতে পেরেছে এই হোটেল ৭১. আর যখন আপনি এই হোটেলের মধ্যে প্রবেশ করবেন। তখন আপনি বাংলার ইতিহাসের ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা সংগ্রাম পর্যন্ত। বিভিন্ন বিষয় গুলো চিত্রকর্মের মাধ্যমে দেখতে পারবেন। এর পাশাপাশি এই হোটেল এর মধ্যে বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। যা আপনার নজর কাড়তে সফল হবে। আর আপনি যদি এই ধরনের আবাসিক হোটেল ভাড়া নিতে চান। তাহলে আপনাকে প্রতি রুম বাবদ ৪০ ডলার থেকে শুরু করে ১২০ ডলার পর্যন্ত দৈনিক ভাড়া প্রদান করতে হবে।

Read More :   অভিভাবক সমাবেশে শিক্ষকের বক্তব্য

# নাম্বার:৩- হোটেল দি ক্যাপিটাল

যারা মূলত আন্তর্জাতিক মাধ্যমে আমাদের দেশে আসেন। তাদের পছন্দের সেরা একটি হোটেল হল হোটেল দি ক্যাপিটাল। কেননা এই হোটেল ভাড়া নেওয়ার পরে আপনি বিভিন্ন দিক থেকে সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। যেমন এই হোটেলের মধ্যে যে কর্মরত ও কর্মচারীরা রয়েছে। তারা আপনার সাথে অনেক বন্ধুসুলভ ব্যবহার করবে। এবং এই হোটেল সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকে। আর এইসব সুবিধা গুলোর জন্য অনেকেই এই হোটেল কে ভাড়া নিয়ে থাকে। তো আপনি যদি কখনো এই হোটেল টি ভাড়া করতে চান। তাহলে আপনাকে এসি সহ রুমের জন্য ২৪৫০ টাকা থেকে শুরু করে ৩৫০০ টাকা পর্যন্ত প্রদান করতে হবে। এবং আপনি যদি এসি ছাড়া রুম ভাড়া নিতে চান। সেক্ষেত্রে আপনি এক হাজার টাকা থেকে শুরু করে ২৭০০ টাকা পর্যন্ত রুম ভাড়া নিতে পারবেন।

হোটেল ভাড়া দেওয়া / নেওয়া নিয়ে কিছু কথা | আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

প্রিয় পাঠক, গুরুত্বপূর্ণ এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আমি আবাসিক হোটেল নিয়ে বেশ কিছু তথ্য শেয়ার করেছি। যেমন, আপনি একজন নতুন ব্যক্তি হিসেবে যখন হোটেল ভাড়া দিতে যাবেন। তখন আপনাকে যে সকল নিয়ম-নীতি মেনে চলতে হবে। সে গুলো উল্লেখ করেছি। এর পাশাপাশি একজন সাধারণ ব্যক্তি যখন কোন আবাসিক হোটেল ভাড়া করতে যাবে। তখন তাকে কোন কোন বিষয় গুলোর দিকে খেয়াল রাখতে হবে। এবং সবচেয়ে কম টাকায় কোথায় হোটেল পাওয়া যাবে। সেই বিষয় গুলো নিয়ে আমি উপরে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

তো আপনি যদি এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলো কে খুব সহজে জানতে চান। তাহলে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত ভিজিট করবেন। আর আমাদের লেখা আর্টিকেল গুলো সম্পর্কে যদি আপনার কোন ধরনের অভিযোগ কিংবা মতামত থাকে। তাহলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন। আশাকরি আজকের আর্টিকেলে আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম সম্পর্কে আমাদের ওয়েবসাইটে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।